বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৫ মার্চ ২০২০

বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস এবং জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র এর যৌথ উদ্যোগে “লেখক ও প্রকাশকের স্বার্থ সুরক্ষা” শীর্ষক সেমিনার আয়োজন।


প্রকাশন তারিখ : 2020-02-26

প্রেস রিলিজ

বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস এবং জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র এর যৌথ উদ্যোগে “লেখক ও প্রকাশকের স্বার্থ সুরক্ষা” শীর্ষক সেমিনার ২৫-২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখ জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারের প্রথম দিবসে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সহ-সভাপতি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিন্টিং ও পাবলিকেশনস বিভাগের খন্ডকালীন শিক্ষক জনাব খান মাহবুব। সেমিনারে সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের বেসরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত গ্রন্থাগারের 97 জন গ্রন্থাগার অংশগ্রহণ করেন। মূল প্রবন্ধে জনাব খান মাহবুব লেখক ও প্রকাশকের পারস্পরিক সম্পর্ক, পাইরেটেড পুস্তকের কুপ্রভাব এবং রয়্যালিটি প্রাপ্তির ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা দূরীকরণ এবং তা উত্তরণের বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করেন।

সেমিনারের দ্বিতীয় দিনে বেসরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের গ্রন্থাগারের ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত 104 জন গ্রন্থাগার অংশগ্রহণ করেন। এদিন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সচিব, স্বনামধন্য লেখক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ভাষা সৈনিক জনাব ইনাম আহমদ চৌধুরী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি কপিরাইট এর গুরুত্ব, পাইরেসিরোধে সৃজনশীল ব্যক্তির সচেতনতা এবং নৈতিকতা শিক্ষার ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন যে, পাইরেসিরোধ করা সম্ভব হলে সৃজনশীল ব্যক্তির অধিকার যেমন সুরক্ষিত হবে, তেমনি সৃজনশীলতার বিকাশও বহুল পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে। স্বাগত বক্তব্যে গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক জনাব মিনার মনসুর সমকালীন বিশ্বে কপিরাইট এর প্রয়োজনীতা ও পাইরেসির ক্ষতিকর প্রভাব ‍তুলে ধরার পাশাপাশি বলেন যে, বর্তমান বিশ্বের প্রথম ১০ জন শ্রেষ্ঠ ধনী, কেবল মেধাসম্পদকে কাজে লাগিয়ে সারাবিশ্বে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিষ্ঠা করেছেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসের রেজিস্ট্রার জনাব জাফর রাজা চৌধুরী। তার বক্তব্যে তিনি কপিরাইট ধারণার উদ্ভব, বাংলাদেশে কপিরাইট আইনের ইতিহাস, বিভিন্ন দেশের অর্থনীতিতে কপিরাইটের অবদান, বর্তমানে বাংলাদেশে কপিরাইটের বিদ্যমান অবস্থা, কপিরাইট রেজিস্ট্রেশনের সুবিধা এবং পাইরেসিরোধের উপায় ইত্যাদি বিষয়ে আলোকপাত করেন। প্রণেতার স্বত্বাধিকার নিশ্চিত করার লক্ষে তিনি খুলনা ও রাজশাহী বিভাগের বেসরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত পাঠাগারের প্রতিনিধিদের কপিরাইট এর দূত হিসেবে কাজ করার আহ্বান জানান।

সেমিনারে অংশগ্রহণকারীগণের পক্ষ থেকে উত্থাপিত কপিরাইট ও রিলেটেড রাইট সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্ন ও জিজ্ঞাসার জবাব প্রদান করার ব্যবস্থা করা হয়। সেমিনারটি সঞ্চলনা করেন বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসের ডেপুটি রেজিস্ট্রার জনাব রায়হানুল হারুন।


Share with :

Facebook Facebook